ভালবাসতে শিখিনি

আমি এক তুলসীপাতার প্রেমে পড়েছিলাম
যে প্রার্থনা ভক্তি পূঁজো পেতে মত্ত,
আমি এক মসজিদের প্রেমে পড়েছিলাম
যে আতর গোলাপ সুগন্ধিতেই সুরভিত,
আমি এক প্যাগোডার প্রেমে পড়েছিলাম
যে বলেছিলো চোখবুঝে অন্ধকারে ভাবুন আলোকিত,
আমি এক কলঙ্কিনীর প্রেমে পড়েছিলাম
যে দূর থেকেই ভালোবাসা দিয়ে হারিয়ে যেতে চায়
বললো-
মৃত্যুর পর যখন নিষ্পাপ তুলসীপাতা-মসজিদ-প্যাগোডার মতো পবিত্র হবো;তখন ভালোবাসবেন তো?
না! বাসবোনা;
ভালো যে মানুষকেও বাসতে হয় সেটা শিখিনি তো!

The risk of death will increase if you sit for long time

Most of the people sit all the day long for their job or work. But we don’t know that this habit is silently killing us. If you are not aware of this then this article for you.

Sitting noiselessly murders us

Most Americans sit for over 11 hours for each day! It’s not shocking that we sit so much: our lives are intended for this stasis. Huge numbers of us have work areas at work. We invest a considerable measure of our energy there gazing at PC screens, perusing, composing, making calls, and so forth.

The net impact of this is our muscles stay idle for 70 to 80% of our waking hours. We consume fewer calories than we completed 50 years back. What’s more, to top it all off, there are not kidding medical problems in danger. As we know, sitting can prompt cardiovascular issues, Type 2 diabetes, certain sorts of growth, and despondency.

Work in a treadmill

We as a whole have long workdays and home commitments that gobble up our hours. This is the place the treadmill work area is great! You can work up to strolling for maybe a couple hours, or significantly more, along these lines keeping away from the potential medical issues. It will help you to get more dynamic and consume more calories for the duration of the day.

Don’t simply stay there!

sitting

It’s not an unquestionable requirement to get a treadmill, which can be to some degree costly. An incredible contrasting option to begin is a standing work area, or a convertible work area that climbs and down for both standing and situated work. A rack, ledge, or durable box could function as stopgap standing work areas too.

As you begin, exchange frequently. It can require a significant stretch of time to get used to physically dynamic working. Labor for 20 minutes standing, at that point sit for 20 minutes. Continue exchanging forward and backward. When this turns out to be simple, you can expand you standing time – yet at the same time ensure you take breaks! What’s more, when you can, take a little walk while you work, for example, in case you’re conversing with clients, having a phone call, or tuning in to a book recording.

It takes some getting used to, yet give it a shot! Change from sitting to standing, and from remaining to strolling. You also can stay away from the seat trap and roll out little solid and effective improvements to your work style.

মমি শুধু ঐতিহাসিক নিদর্শন ছিল না, মানুষ এগুলো ব্যবহার করতো

মিশরের নাম শুনলে প্রথমে আমাদের মাথায় যে চিন্তা আসে তা হল মমি। মমির কথা শুনলে কেমন যেন একটা গাঁ শিরশিরে অনুভূতি হয়। মিশরের মমি দেখেছেন কখনো? আসল মমি দেখেছেন হয়তো কোন যাদুঘরে। কাল্পনিক মমি অবশ্যই দেখেছেন কোন চলচ্চিত্রে বা গল্পে। কিন্তু আপনি কি জানেন এই মমি দিয়ে কতো কিছু করছে মানুষ। ঔষধ বানানো থেকে শুরু করে ছবির রঙ বানাতেও ব্যবহৃত হয়েছে মমি।

১৭৯৮ সালে নোপলিয়ন মিশর আক্রমণ করে। বেশ কিছু পুরাতাত্ত্বিক আবিষ্কারের ফলে ১৯ শতকে ইউরোপ ও আমেরিকা জুড়ে মিশরের মমির আজব সব ব্যবহার শুরু হয়। ১৮৩০ এর দিকে গুপ্তধনের খোঁজে বিত্তবান পশ্চিমা ইউরোপীয় ও আমেরিকানদের ঢল ছোটে মিশরের মরুভূমিগুলোতে। এ নিয়ে তো অনেক গল্প, সিনেমাও তৈরি হয়েছে। এই গল্প আর সিনেমার কাহিনীগুলো কিছুটা বানানো হলেও সম্পূর্ণটা কিন্তু মিথ্যে নয়। তখন যদি কেউ মমি খুঁজে পেতেন, সেটা ছিল তার জন্য অত্যন্ত গর্বের এবং এ ঘটনাকে জীবনের অন্যতম বড় অর্জন বলে মনে করা হতো। ইউরোপীয়দের মমি উন্মাদনা এমন পর্যায়ে পোঁছে গিয়েছিল যে, কেউ মিশর থেকে ইউরোপে ফিরে যদি এক হাতে মমি আর অন্য হাতে কুমীর দেখাতে না পারতেন, তাহলে তাকে কেউ পাত্তাই দিতো না।

১৯ শতকে ইউরোপীয়রা কিভাবে মিশরের মমির ব্যবহার (আসলে অপব্যবহার করতো) করতো জানা যাক।

মমি দিয়ে রোগের ঔষধ তৈরি

মমি

ব্যপারটা অদ্ভুত মনে হতে পারে, কিন্তু ১৯ শতকের শুরুর দিকে ইউরোপীয়রা সুস্বাস্থ্যের জন্য একধরনের ক্যানিবলিজম অনুশীলন করতো। ঐতিহাসিক রিচার্ড সুগের মতে, ১৯ শতকের শেষের দিকে থেরাপিউটিক এজেন্ট হিসেবে মানব শরীরের ব্যাপক গ্রহনযোগ্যতা ছিল। বেশিরভাগ জনপ্রিয় চিকিৎসায় মানব দেহের রক্ত, মাংস, হাড় এমন কি মাথার খুলিও ব্যবহার করা হত।

মমি, প্রায়ই “মামিয়া” (বিটুমিন আর মমির সংমিশ্রণে এক বিভ্রান্তিকর শব্দ) হিসেবে বিক্রি করা হত, এটি ত্বকে ব্যবহার করা হত। অথবা গুড়ো করে পানীয়তে মিশিয়ে ত্বকের কালশিটে দাগসহ অন্যান্য রোগের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়। অনেকেই মনে করতেন যে মমিতে আরোগ্য করার বিশেষ ক্ষমতা আছে। আবার অনেকে মনে করতেন যে মমিতে রক্ত চলাচল বাড়াতে বিশেষ গুণ রয়েছে। এই মমির ঔষধ এতো বেশী জনপ্রিয়তা লাভ করেছিলো যে, এর চাহিদা মেটাতে দন্ডপ্রাপ্ত আসামী, দাস, ভিক্ষু এমন কি ঊটের লাশ থেকেও নকল মমি তৈরি করা শুরু হয়েছিল। এখন যেভাবে বাজারে ঔষুধ নকল করা হয় আরকি।

মমি পার্টির জৌলুস বাড়াত

মমি

কোন পার্টি বা গেট-টুগেদারের আসর জমানোর জন্য নতুন কিছু দরকার? যদি সেই পার্টিতে কোন মমি উন্মোচন করা হয় তবে ব্যপারটা কেমন হবে? ব্যপারটা এমন যে আপনার ড্রইং রুমে তুতেনখামুনের মমি রহস্য উন্মোচন করা হচ্ছে, পার্টিতে সবার মধ্যে এক শিহরণ খেলে যাচ্ছে। পার্টির জৌলুস বাড়াতে এমন ধরনের থীমের ব্যবহার তখনকার দিনের ইংরেজ জীবনে নতুন কোন ব্যপার ছিল না। বিশেষ করে যারা নিজেদেরকে একটু পন্ডিত মনে করতেন তারাই এমন সব থিমের আয়োজন করতেন।

মমি থেকে তৈরি রঞ্জক যখন চিত্রকরের রঙে

 

১৭ শতকের শুরুর দিকে, মমি ব্রাউন নামে এক ধরনের রঞ্জক পাওয়া যেত। মমি থেকে তৈরি এই রঞ্জক তখনকার ইউরোপীয় শিল্পীদের কাছে বেশ জনপ্রিয় ছিল। চিত্রশিল্পী দ্যলাক্রোয়া এটি ব্যবহার করতেন। এমনকি বৃটিশ শিল্পী স্যার উইলিয়াম বিচে ব্যবহার করতেন। বিশেষ করে প্রাক-রাফায়েলীয়দের কাছে এটি বেশি পছন্দের ছিল। তবে বেশির ভাগ মানুষ অজান্তেই ব্যবহার করতো। কি দিয়ে তারা আকঁছে তা তারা জানতোই না।

মমি দিয়ে ঘরের স্মারক সাজানো হতো

মমি

১৯ শতকের বিত্তবান শ্রেণীর মধ্যে মিশর যাত্রা এতটাই জনপ্রিয় ছিল যে অনেকে বাড়ীতেই ড্রইং রুমে স্মারক হিসেবে মমি রাখা হতো। অনেক সময় বেডরুমেও মমি রাখতো। অনেকে বাড়ির বিভিন্ন স্থানে মমির হাত, পা বা মাথার প্রদর্শনী করতো। বিশেষ করে বাড়ীর মেনটালপিছের উপরে কাঁচের ডোমের উপর সেগুলো দেখা যেত। অনেক সময় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেও মমি প্রদর্শীত হতো। সিকগোর একটি ক্যান্ডি শপে ১৮৮৬ সালে একটি মিশরীয় মমি প্রদর্শন করে ক্রেতা আকৃষ্ট করা হতো। বলা হতো মমিটি ফেরাউনের মেয়ে মমি যিনি মূসাকে নলখাগরার জঙ্গল থেকে উদ্ধার করে নিয়ে গিয়েছিল। এগুলো ছিল আসলে লোক দেখানো বিষয়। মানুষকে ধাঁধাঁয় ফেলে দেয়াই ছিল এই উচ্চবিত্তদের কাজ।

কাগজ হিসেবে মমির ব্যবহার

মমি

কাগজ তৈরি নিয়ে যারা গবেষণা করেছেন তাদের কাছে এটি একটি বিতর্কের বিষয়। ১৯ শতকের মধ্যভাগে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পূর্ব উপকূলে কাগজের মিলগুলো মমি মোড়ানো কাপড়গুলো কাঁচামাল হিসেবে আমদানী করতো বলে মনে করে অনেক গবেষক। অনেকের মতে ১৯ শতকের শুরুর দিকে আমেরিকায় মুদ্রিত জিনিসের বেশ ভাল চাহিদা দেখা যায়। গাছের পাল্পে কাগজ তৈরি শুরু হয় ১৮৫০ সালে যখন মমি কাগজের সল্পতা দেখা যায়। যদিও অনেকের মতে মমির সংখ্যা ছিল প্রচুর। তাই এ গল্পটি নিয়ে মত পার্থক্য রয়েছে।

মিশরের মমি দিয়ে সার তৈরি

মমি

দেব-দেবীদের প্রসন্ন লাভে লক্ষ লক্ষ জীবজন্তু প্রাচীন মিশরে মমি করা হয়েছিল। এতো জীবজন্তুর মমির ভিড়ে সবচেয়ে বেশি পাওয়া গিয়েছে বিড়ালের মমি। বিড়ালের মমির পরিমান এতো ছিল যে ১৯ শতকের শেষের দিকে ইংরেজ কোম্পানিগুলো কৃষিকাজে ব্যবহারের জন্য মিশর থেকে এগুলো কিনে নেয়। এক হিসেবে পাওয়া গেছে একটি কোম্পানী প্রায় ১৮,০০০ বিড়ালের মমি কিনেছিল। যার ওজন প্রায় ১৯ টন হবে। এগুলো দিয়ে সার তৈরী করা হয়েছিল এবং সাড়া ইংল্যান্ডে জমিতে তা ব্যবহার করা হয়েছিল। এই চালানের একটি বিড়াল খুলি এখনও ব্রিটিশ মিউজিয়ামের ন্যাচারাল হিস্টরি ডিপার্টমেন্টে রক্ষিত আছে।

তহবিল গঠনে মমির পদর্শনী

মমি

ম্যাসাচুসেটস জেনারেল হসপিটাল প্রথম স্থান যেখানে আধুনিক অ্যানেস্থেশিয়া ব্যবহারে প্রথম পাবলিক সার্জারি করা হয়েছিল। ১৮৪৬ সালে এই স্থানটি ইথার ডোম নামে একটি এম্পিথিয়েটার ছিল। কিন্তু এছাড়াও এ স্থানে আরেকজনের বসবাস ছিল যা কোন হসপিটালে থাকে না, তা হল একটি মিশরের মমি।

১৮২৩ সালে এই মমিটি ম্যাসাচুসেটস জেনারেলে উপহার হিসেবে আসে সিটি অব বোস্টন পক্ষ থেকে। ১৯ শতকের শুরু দিকে মমিটি মূলত কিনে আনেন একজন ডাচ ব্যবসায়ী, তিনি ম্যাসাচুসেটস জেনারেল হাসপাতালে এটা দেন হসপিটালের জন্য তহবিল সংগ্রহ করতে। হসপিটালের মতে, মমিটি দেখতে শত শত লোক জড়ো হয়েছিল, প্রত্যেকে তখন ০.২৫ ডলারের বিনিময়ে দেখেছিল আমেরিকায় প্রথম মানুষের সম্পূর্ণ মিশরীয় মমি। এরপরে বহুবার বহুস্থানে প্রদর্শনী করে হসপিটালের জন্য তহবিল সংগ্রহে ব্যবহার করা হয়েছে। মমিটি আজও সেই হসপিটালে অবস্থান করছে।

স্বৈরাচারীর আর্তি

একদিন আমার সব ছিল, আমিই ছিলাম রাজা

আমার কথা শুনত সবাই, সবাই ছিল প্রজা

অহংকারে মাটিতে মোর, পড়তো নাকো পা

করতাম আমি মনের সুখে, যখন খুশি যা

রাতকে আমি দিন করিতাম, দিন করিতাম রাত

এক ইশারায় বহু মানুষ, করে দিতাম ফাঁত

আমার কথায় আর্মি পুলিশ, গোয়েন্দাদের দল

ভয়ের চোটে উঠত কেঁপে, পড়তো চোখের জল

পাইক-পেয়াদা অনেক ছিল, ছিল অনেক বাড়ি

আমার চলার আগে পিছে, থাকতো শত গাড়ি

কোন দেশের আমন্ত্রণে, আমি সেথায় গেলে

কি যে খুশি হতো তারা, আমায় কাছে পেলে

লাল গালিচা সেরা বাড়ি, দারুন খাবার দিত

আমার সেবা করে তারা, হয়ে যেত প্রীত

সব হারিয়ে নিঃস্ব এখন, জেলখানাতে থাকি

কখন জানি খাঁচা ছেড়ে, উড়াল দিবে পাখি

এখন আমি বুঝে গেছি, আমি কিছুই না

অহংকার সব উড়ে গেছে, মাটিতেই এখন পা

ভুল করেছি ভুল ভেবেছি, ভুলেই জীবন পার

ভুলগুলো কি শুধরে নেয়ার, সময় পাব আর

আর কি আমি মুক্ত হব, স্বাধীন খোলা জীবন পাব?

তোমরা আমায় ক্ষমা কর, একেবারেই চলে যাব

শাসক যারা আছো তারা, কেউ করনা আমার মতো ভুল

নয়ন জলে ভাসবে শেষে, পাবেনা কেউ কূল

বন্ধ জেলে থাকবে একা, রইবেনা কেউ পাশে

স্বৈরাচারী নাম নিয়ে হায়, থাকবে ইতিহাসে

তাই বলি কি সময় আছে, ভাল হয়ে যাও

যা পেয়েছ ধন্য তুমি, সব পেয়েছ ফাও ।।

স্বৈরাচারীর দম্ভ

পেয়েছি অনেক দেয়নি কিছুই, জীবনের লক্ষ্য একটাই

যা পাব শুধু আমিই খাব, খাওয়াবো না কাউকেই

বলবো আমি, শুধুই আমি, আমিই গুরু আমিই নেতা

আমার কথা শুনবি তোরা, হয়ে শুধু নীরব শ্রোতা

আমার খুশিই সবার খুশি, পরাণ খুলে হাসবি

আমার কোনো দুঃখ হলে, নয়ন জলে ভাসবি

আমার সেবা করবি সবাই, রাখবি আমায় সুখে

খুশি হয়ে অল্প কিছু কাঁঠাল পাতা, মারবো ছুঁড়ে মুখে

আমার কথাই শেষ কথা, তোদের কোনো কথা নেই

এমনি কি আর তোদের আমি, এত কাঁঠাল পাতা দেই

রাজার মতো চলবো আমি, সবাই আমার প্রজা

বেয়াদবি করলে তারে, পরপারে পাঠিয়ে দেবো সোজা

মানুষ মারা আমার কাছে, তেমন কিছুই নয়

এমনি কি আর সবাই মোরে, কসাই সেলিম কয়

আমার মতো বড় নেতা, এক পিসও পাবি নাকো খুঁজে

আমি আছি বলেই তোরা, আছিস এতো মৌজে

আমার ছেলের সাত খুন মাফ, সব থাকবি চুপ

কথা বললে ঘাড়ের পিছে, ওমনি খাবি কোপ

আমি আমি, শুধুই আমি, তোরা কেউ নস

এখন থেকে সবাই তোরা, ডাকবি আমায় বস

Long distance relation can be stronger if you want

Many people trust that long distance relationships are never going to work out. Your family may disagree about it and some of your closest friends may encourage you not to consider it excessively important. On the off chance you get your heart broken.

In our life sometimes we stay with someone for years after years but don’t understand each other. For some reason some people stay apart but stay with each other like glue.

If you are in a long distance relationship then you should know how to maintain this relation and make it better always. So my friend this article is for you.

Long distance relationship doesn’t need excessive talking

When we are in a relationship we do talking each other more. When we are in a long distance relationship we think we should talk more and more. Many couples thought that they need to compensate for the distance by doing more. This is not true. You don’t need to talk 10-15 hours a day. Soon you will get tired of love each other.

Long distance relationship needs communicate regularly

Since you are apart from your partner you should talk regularly. It is really a matter of sorrow that you cannot see each other even once in a week. If you want a good relation then you should talk regularly. Give your partner more attention. Say Good Morning or Evening to each other. Don’t forget to say Good Night before sleeping. By this behavior the other person will feel more loved.

Send your pictures, audio clips and sometimes video clips.

Be loyal with each other

Loyalty is very important in a relationship.  So when you are in a long distance relationship you need to be more loyal to your partner. If you want a true love then you should tell everything about yourself. Send your real picture; say what you are now doing. If the person really loves you then he/she can manage everything. It depends on your effort. Your partner can not check your all information. Be open and honest with each other. Let your partner help you and give you the support you need.

Do things together

Couples go to see movies, disco, museum. Long distance relationship couple doesn’t need to be sad. They can stay together too. Tell your partner to see the same movie you are watching, TV shows or the book you are reading.

Visit to each other city or place

Try to visit each other’s city. After all the waiting and yearning and abstinence, you finally get to meet each other to fulfill all the little things. You can also invite your partner to make a visit to your city. You can turn him around.

Know each other schedules

Ask your partner when he/ she is busy, when they stay free or need a call from you. Don’t disturb your partner during class or meeting. Know when he/she is in the road. Don’t call at the time. There is an important thing that is, doing call again and again while the call is not receiving.

Give a pet name to your partner

People give pet name to their most loveable person. So give a pet name and always call with that name.

Send gift

Note your partner’s address. Buy a surprising gift for that lovely person. Send not only in occasion but also for make the person happy.

নতুন বছরে নিজেকে পরিবর্তন করতে যে পরিকল্পনাগুলো করতে পারেন

দেখতে জীবন থেকে চলে এলো আরও একটি পুরনো বছর। আগমন ঘটলো নতুন বছরের। নতুন বছর হল নিজেকে নতুন ভাবে গড়ে তোলার আর একটি সুযোগ।

অনেকে বলে কাল থেকে সব ঠিক করবো, অনেকে বলে সামনের সপ্তাহে আবার অনেক মানুষ আছে সামনের মাসের জন্য অপেক্ষা করতে থাকে।

তাই নতুন বছরের প্রথম দিন থেকে নিজেকে পরিবর্তন করার চেষ্টা করুন।

কি কি দিক দিয়ে নিজেকে পরিবর্তন করতে পারেন তার একটি সাধারণ ধারণা তুলে ধরছি। বাজী ধরে বলতে পারি আপনি অবশ্যই উপকৃত হবেন।

নতুন বছরে নিজেকে নির্দিষ্ট ওজনে আনুন

নতুন

শরীরের উচ্চতা অনুযায়ী নির্দিষ্ট পরিমাণে ওজন থাকলেই আপনি একটি স্বাস্থ্যকর দেহের অধিকারী হতে পারবেন।

যারা চিকন তারা কি করলে অথবা কি ভাবে নিজের স্বাস্থ্যকে ঠিক করতে পারবেন তার তালিকা তৈরি করুন।

যারা অতিরিক্ত ওজনের অধিকারী তারা ব্যায়াম এবং খাবার নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে নিজেকে পরিবর্তন করার চেষ্টা করুন।

নিজের লক্ষ্যে পৌঁছাতে চাইলে আপনাকে অনেক দৃঢ় হতে হবে। নিজেকে চ্যালেঞ্জ করুন বছরের ৪-৫ মাসের মধ্যে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে যেতে হবে।

নতুন বছরে পুরনো বদ অভ্যাস ছাড়ুননতুন

 

প্রতিটা মানুষের কিছু না কিছু বদ অভ্যাস থাকে। নতুন বছরে মানুষ অতীতকে ভুলে নতুনের সাথে চলে। তাহলে এই বছর আপনার কোন পুরনো বদ অভ্যাস ত্যাগ করুন।

সেটা হতে পারে সিগারেট খাওয়া, পান খাওয়া, অতিরিক্ত চকলেট খাওয়া, আইসক্রিম খাওয়া, নখ কামড়ানো, অযথা বই এ দাগাদাগি করা এমন আরও অনেক কিছু।

একবার ভেবে দেখুন আপনি যদি প্রতি বছর যদি একটি করেও বদ অভ্যাস ছেড়ে দিতে পারেন তাহলে ১০ বছরে ১০ টা বদ অভ্যাস আপনার থেকে দূরে সড়ে যাবে। ব্যাপারটা কার্যকর করতে পারলে এর ফল আপনি নিজেই অনুভব করতে পারবেন।

বই পড়ুন

নতুন

সবচেয়ে ভালো আর কাছের বন্ধু বলা হয় বইকে। শুধু যে জ্ঞানমূলক আর উপদেশমূলক বই পড়লে মানুষ উপকৃত হয় তা নয়।

আপনার পছন্দসই যেকোনো বই পড়তে পারেন। বই পড়ার জন্য টাকা জমিয়ে বই কিনুন।

কথায় আছে, “বই কিনে কেউ কখনো দেউলিয়া হয় না”।

নিজের সাথে সব সময় একটি বই রাখুন। ফেসবুক অথবা ইউটিউবে না ঘুরে একটা বইয়ের কয়েকটা পাতা পড়ুন। অভ্যাসটি ৭ দিন মেনে চলুন। অবশ্যই ভালো কিছু পাবেন।

পৃথিবীটা দেখুন

নতুন

ভ্রমণের কথা বলাতে আপনি হয়তো আমাকে মনে মনে গালি দিতে পারেন, এই বলে যে, বেড়াতে গেলে কত টাকা লাগে ধারণা আছে?

তবে সত্যি ভাই, ঘুরতে চাইলে মন লাগে মানি (টাকা) নয়।

পৃথিবী ঘুরতে হয়তো অনেক ঝামেলা আছে। পাসপোর্ট করতে হয়, অনেকে বাইরে ঘোরা নিরাপদ মনে করেন না। তাছাড়া বাসা থেকে অনুমতি নেয়ার একটা ব্যাপার আছে।

আমাদের বাংলাদেশেই আছে অনেক অনেক দেখার মতো জায়গা। আপনি যদি শুধু ঘুরতে যেতে চান তাহলে টাকা কোন ব্যাপার না।

টাকা উড়াতে হবে ঘুরতে গেলে এই ধারণা ভুল। আর যদি পাসপোর্ট, ভালো অঙ্কের টাকা এবং বাসার অনুমতি থাকা সত্ত্বেও আপনি ঘরে বসে থাকেন তাহলে আমাকে কিছু টাকা ধার দেন আমি ঘুরে আসি।

জীবনটা অনেক ছোট, পৃথিবীটা অনেক বড়। সময় নষ্ট না করে প্রতি বছর কোথাও না কোথাও ঘুরতে যান।

টাকা জমান

নতুন

টাকা হাতে আসলে থাকে না, শুধু খরচ হয়ে যায়? তাহলে আপনি অনেক বড় ভুল করছেন।

প্রতিদিন কিছু করে হলেও টাকা জমান। যারা চাকরিজীবী তারা নিজেদের জন্য ব্যাংকে একটা একাউন্ট খুলে টাকা জমান শুরু করুন।

নতুন বছরে এটা খুব ভালো একটা উদ্যোগ হবে।

বিশ্বাস না হলে আপনার এই পরিকল্পনা আরও কয়েকজনের সাথে শেয়ার করে দেখতে পারেন।

ঘুরতে গেলে যখন টাকা নিয়ে চিন্তা হবে অথবা কোন জরুরী কাজে এই টাকাগুলোই আপনার বিপদে পাশে থাকবে।

সামাজিক মাধ্যমে কম সময় দিন

আমরা এমন এক প্রজন্মে বাস করছি যেখানে মোবাইল, ইন্টারনেট, ফেসবুক ছাড়া কিছু চিন্তা করা যায় না।

আপনার কোন বন্ধু অথবা পরিচিত কেউ যদি বলে তার ফেসবুক একাউন্ট নেই তাহলে হয়তবা আমার আপনার বিশ্বাস হবে না। কিন্তু সেই ব্যক্তিটি যে কত ভালো আছেন তা আপনি জানেন না।

সামাজিক মাধ্যম আছে, থাকবে কিন্তু সারা দিন সামান্য সময় পেলেই যদি সেখানেই মুখ ডুবিয়ে পড়ে থাকেন তাহলে আপনি ভাই মানুষ বটে তবে সভ্য নন।

অনেকে আছে কারো সাথে কথা বলার সময় অথবা খাওয়ার সময়ও হাতে ফোন নিয়ে থাকে।

তারা হয়তো জানেনা এটা কত বড় মুদ্রাদোষ।

মুরব্বীরা বেয়াদবি বললে অস্বীকার করার উপায় নেই।

সুতরাং বিশেষ কোন প্রয়োজন অথবা একান্ত অবসর সময় ছাড়া সামাজিক মাধ্যমে প্রবেশ থেকে বিরত থাকুন।

মানুষকে সাহায্য করুন

মানুষকে সব সময় টাকা দিয়ে সাহায্য করতে হবে এমন নয়।

আপনি চাইলে মানুষকে তথ্য দিয়ে, বিভিন্ন উপায় বলে সাহায্য করতে পারেন।

অনেকে আছি যারা ৫ টাকার জন্য সবজিওয়ালা অথবা রিক্সাওয়ালার সাথে ঝগড়া করি।

ভিক্ষুককে টাকা না দিয়ে এদেরকে ৫/১০ টাকা বেশি দিন। নতুন বছরে এই অভ্যাসটাও গড়ে তুলতে পারেন।

বিনয়ী হন

আমরা সভ্য জাতিতে বসবাস করলেও বিনয়ী হতে ভুলে গেছি। বিনম্র মানুষদের সবাই অনেক পছন্দ করে।

না বুঝেও অনেক সময় আমরা উঁচু গলায় কথা বলি মা বাবার সাথে, বড়দের সাথে।

নিজের এই ভুল এক সময় অভ্যাসে পরিবর্তিত হয়ে যায়।

আপনারও এই সমস্যা থাকলে এখনি বের হয়ে আসুন। নম্র এবং বিনয়ী হওয়ার চেষ্টা করুন।

 

২০১৭ সালে ক্রিকেট বিশ্বের আলোচিত ঘটে যাওয়া ঘটনা

চলে যাচ্ছে ২০১৭। ২০১৭ সালে ক্রিকেট বিশ্বে ঘটে গেছে নানা রকম ঘটনা। সবগুলো ঘটনা একসাথে করে আপনাদের কাছে উপস্থাপন করার চেষ্টা করেছি।

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে পাকিস্তানের রেকর্ড

ক্রিকেট
জুনে অনুষ্ঠিত আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির অষ্টম আসরে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতকে হারিয়ে প্রথম বারের মত শিরোপা জিতলো পাকিস্তান। ইংল্যান্ডের কেনিংটন ওভালের একতরফা ফাইনালে পাকিস্তান ১৮০ রানের বিশাল ব্যবধানে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতবধ করে তাদের কাঙ্ক্ষিত বিজয় অর্জন করে।

খুব কম বয়সী তরুণ ফখর জামান (১১৪), আজহার আলী (৫৯) ও মোহাম্মদ হাফিজের (৫৭*) দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেটের বিনিময়ে ৩৩৮ রানের পাহাড় গড়ে তুলে পাকিস্তান। জবাবে মোহাম্মদ আমির (৩/১৬), হাসান আলির (৩/১৯) দুর্ধর্ষ বোলিং ঝড়ে ভেঙে পড়ে গত আসরের চ্যাম্পিয়ন দল ভারত। ৩০.৩ ওভারে মাত্র ১৫৮ রানে প্যাকেট হয়ে যায় ভারত। গ্রুপ পর্বে ভারতের সাথে এমন হারের পর বিভিন্ন মহলে পাকিদের সামর্থ নিয়ে প্রশ্ন তুলে ছিলেন।

ওভালে সেই ভারতকে উড়িয়ে স্বপ্নের শিরোপা জিতে নিয়ে অনেক বড় জবাব দিলো সরফরাজের পাকিস্তান দল। আসরে পাকিস্তান মোটেও ফেভারিট ছিলো না, অন্য দিকে বিরাট কোহলির ভারত আগের বারের চ্যাম্পিয়ন্স ছিলো। পাকিস্তানকে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে ফেভারিট হিসেবে রাখেনি কিন্তু সেই পাকিস্তান তাদের চিরো শত্রু ভারত কে লজ্জায় ডুবিয়ে তাদেরই হাতে ওয়ান্ডে ফর্মেটের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ খেতাব। সেটিও এমন দু-জনের পারফর্মের উপর নির্ভর করে টুর্নামেন্টের আগে অনেকেই যাদের নামও জানতো না। বিরাট কোহলি, ইয়ন মরগান, স্টিভেন স্মিথ, এবিডি ভিলিয়ার্সদের পিছু হটিয়ে পাকিদের সাফল্যের নেপথ্যের নায়ক ফখর জামান ও হাসান আলি নামের দুই নবীন খেলোয়ার।

আফগানিস্তান ও আয়ারল্যান্ডের টেস্ট মর্যাদা অর্জন

আফগানিস্তান ও আয়ারল্যান্ড জুনের শেষ সপ্তাহে টেস্ট মর্যাদা পায়। ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) সভায় আফগানিস্তান ও আয়ারল্যান্ডকে পূর্ণ সদস্যের সম্মান দেওয়ায় টেস্ট খেলুড়ে দেশের সংখ্যা ১০ থেকে ১২-তে পোঁছায়।লন্ডনে আইসিসির বার্ষিক সভায় সবার সম্মতিক্রমে দেশ দুটিকে পূর্ণ সদস্যের সম্মান দেয়া হয়। এর আগে ২০০০ সালে বাংলাদেশ টেস্ট মর্যাদা পেয়েছিল।

মেলবোর্নে ১৮৭৭ সালে প্রথম টেস্ট ম্যাচ খেলা লংগার ভার্সনের দুই প্রতিষ্ঠাতা সদস্য অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ড ছাড়াও দক্ষিণ আফ্রিকা, নিউজিল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, ভারত, পাকিনস্তান, শ্রীলঙ্কা, জিম্বাবুইয়ে ও বাংলাদেশের সঙ্গে কুলীন ক্লাবে যুক্ত হয়েছে আফগানিস্তান ও আয়ারল্যান্ড।

ক্রিকেট আয়াল্যান্ডের প্রধান নির্বাহী ওয়ারেন ডিউট্রন তার এক বিবৃতিতে বলেন, ‘আইরিশ ক্রিকেটের সঙ্গে যুক্ত সকলের জন্যই এটা একটা সুসংবাদ। এই ইতিবাচক সিদ্ধান্তের জন্য আমি আইসিসি এবং সব সদস্য রাষ্ট্রকে ধন্যবাদ জানাই।’

এছাড়া তিনি আরও বলেন, ‘খেলাটির সর্বোচ্চ পর্যায় হচ্ছে টেস্ট ক্রিকেট এবং যেটা আমাদের সকলের স্বপ্ন ছিল।’ ওয়ারেন ডিউট্রন বলেন, ‘আমরা সকল বিশ্বকাপ খেলেছি,  এ সময়ে আমরা কিছু স্মরণীয় ফল করেছি। তবে টেস্ট খেলাটা হবে বিশেষ কিছু।’

অন্যদিকে আফগানিন্তান ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাহী শফিক স্ট্যানিকজাই বলেন, ‘আফগানিস্তানের মতো একটি জাতির জন্য এটা অনেক বড় প্রাপ্তি এবং স্মরণীয় অর্জন।’

টি ২০তে মিলার ও রোহিতের দ্রুততম সেঞ্চুরির রেকর্ড

দক্ষিণ আফ্রিকার ডেভিড মিলার ও ভারতের রোহিত শর্মা এ বছরই আন্তর্জাতিক টি ২০ ক্রিকেটে দ্রুততম সেঞ্চুরির রেকর্ড গড়েন। ঘরের মাটিতে বাংলাদেশের বিপক্ষে অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে এই কীর্তি গড়েন মিলার এবং ডিসেম্বরে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তার সঙ্গে ভাগ বসান রোহিত। আইপিএলে নভোজিৎ সিং সিধু মিলারকে কিলার উপাধি দিয়েছিলেন। মিলার যে বাংলাদেশী বোলারদের কিলার হবে তা কে বা সেটা জানে। দীর্ঘদিন ফর্মে না থাকা দক্ষিণ আফ্রিকার এই হার্টহিটার ফর্মে ফিরতে বেছে নিয়েছিলেন টাইগারদের। মিলার টি ২০ ক্রিকেটের রেকর্ড বইয়ে তার নাম লেখিয়েছেন দ্রুততম সেঞ্চুরির রেকর্ড। মিলারের এমন ঝড়ে বয়ে যায় তরুণ বোলার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের উপর দিয়ে। মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের এক ওভারেই ৫টি ছয় মারে মিলার।

এই ঝড় বাংলাদেশের উপর বইয়ে দিয়ে ডেবিট মিলার গড়েন টি ২০তে দ্রুততম সেঞ্চুরির নতুন রেকর্ড। এর আগে দক্ষিণ আফ্রিকারই রিচার্ড লেভি ৪৫ বলে সেঞ্চুরি করেছিলেন। আর ফাফ ডুপ্লেসিস ৪৬ বলে করেছিলেন। ওয়ানডে ক্রিকেটে রেকর্ডে তিন ডাবল সেঞ্চুরির মালিক হয়েছেন কয়েকদিন আগেই। টি ২০ তেও তিনি ডিসেম্বরে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৩৫ বলে সেঞ্চুরি করে মিলারের পাশে নাম লেখান। ভারতীয় ওপেনার রোহিত শর্মা ৪৩ বলে ১১৮ রান করে। এমন ঝড়ো ইনিংসে ১২ চারের সঙ্গে ১০ ছক্কা হাঁকান রোহিত শর্মা। টি ২০তে ভারতীয় এই ওপেনারের এটি দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। দুটি সেঞ্চুরির মালিক ক্রিস গেইল, ব্রেন্ডন ম্যাককালাম, এভিন লুইস, কলিন মুনরোও।

লারাকে পেছনে ফেলে ‘অধিনায়ক’ কোহলির ইতিহাস

ক্রিকেট

‘অধিনায়ক হিসেবে’ টেস্ট ক্রিকেটে সবচেয়ে বেশি ডাবল সেঞ্চুরির নতুন রেকর্ড গড়েছেন বিরাট কোহলি।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজ নির্ধারণী তৃতীয় ও শেষ টেস্টে দিল্লীতে প্রথম ইনিংসে ২৪৩ রানের ম্যারাথন ইনিংস উপহার দিয়ে ব্রায়ান লারাকে টপকে যান ভারতীয় ক্রিকেটের ‘ওয়ান্ডার বয়’।অধিনায়ক হিসেবে তিনি ৬ ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে সাবেক ক্যারিবিয়ান গ্রেটকে পেছনে ফেলেন।ইংল্যান্ডের বিপক্ষে গত বছরে ২৩৫ রান করেছিলেন। এটি ছিল সর্বোচ্চ ইনিংসের রেকর্ড ভারতীয়  অধিনায়ক হিসেবে। তিনি নিজের রেকর্ডকেই আরও এগিয়ে নিয়েছেন।

ছয় ডাবল সেঞ্চুরিতে কোহলি ছুঁয়ে গেলেন ভারতীয় রেকর্ডও। ভারতীয় ক্রিকেটারদের মধ্যে ছয় করে ডাবল করেছিলেন বীরেন্দর শেবাগ ও শচীন টেন্ডূলকার।

আগের টেস্টেই একমাত্র ইনিংসে নাগপুরে করেছিলেন ২১৩ রান। টেস্ট ক্রিকেটের ইতিাহসে পর পর দুই ইনিংসে ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকানো ষষ্ঠ ব্যাটসম্যান হলেন এই ভারতীয় ক্রিকেটার। ১৯২৮ ও ১৯৩৩ সালে প্রথম দুই দফায় এমন কীর্তি গড়েছিলেন ইংলিশ কিংবদন্তি ওয়ালি হ্যামন্ড, ১৯৩৪ সালে ব্র্যাডম্যান, ১৯৯৩ সালে বিনোদ কাম্বলি, ২০০৭ সালে কুমার সাঙ্গাকারা ও ২০১২ সালে মাইকেল ক্লার্ক।

কোহলি-আনুশকার আলোচিত বিয়ে

ক্রিকেট

২২ গজে কোহলির ব্যাটিং ঝড়ে কাঁপছে বিশ্ব ক্রিকেট। জীবনের ইনিংসেও কাপিয়ে দিয়েছেন বিরাট কোহলি।অনেক নাটকীয়তার পর ভারতীয় এই অধিনায়ক বলিউড কুইন আনুশকা শর্মাকে জীবনসঙ্গী করেছেন।তিনি বিয়ের জন্য ইতালির ঐতিহাসিক শহর রোম থেকে ৩০০ কিলোমিটার দূরে ছবির মত সুন্দর তাস্কানিকে বেঁছে নিলেন বহুল আলোচিত এই প্রেমিকযুগল। বিরাট-আনুশকা দুজনের নাম মিলে হয়ে গেছেন বিরুষ্কা। বিয়ের ছবি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে ১১ ডিসেম্বর মধ্যরাতে। সকল আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয় তার একদিন আগে মিলানের তাস্কানিতে। সেখানে শুধু দুই পরিবারের নিকটবর্তী মানুষেরাই উপস্থিত ছিলেন। ২৬ ডিসেম্বর, মুম্বাইয়ে বিয়ে পরবর্তী সংবর্ধনায় নিমন্ত্রিত অতিথির তালিকায় ছিলেন ক্রিকেট, বলিউড ও রাজনৈতিক অঙ্গনের বিখ্যাত সব ব্যক্তি।

শর্মিলা ঠাকুর ও টাইগার পাদৌতির পর ক্রিকেট এবং বলিউডের সেরা জুটি বলা হচ্ছে বিরাট ও আনুশকা জুটিকে। সংবাদ মাধ্যম গুলো বলছে, ‘ওয়েডিং অব দ্য ইয়ার ২০১৭’। তাদের জুটি এতটাই আলোচিত যে, বিরাট এবং অনুশকার জুটিও এখন একটা ‘ব্র্যান্ড’।

যারা শুধু বলিউডের রেড কার্পেট বা ক্রিকেট মাঠের সবুজ গালিচা নয়, দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন বিজ্ঞাপনী দুনিয়াতেও। জনশ্রুতি আছে, একটি শ্যাম্পুর বিজ্ঞাপনে প্রথম আলাপ হয়েছিল বিরাট এবং অনুশকার। প্রথমে বন্ধুত্ব দিয়েই শুরু হয়েছিল সম্পর্ক। ২০১৩ সালে ছিল সেই বিজ্ঞাপনের শূটিং।

টি ২০ থেকে ম্যাশের বিদায়

ক্রিকেট

শ্রীলঙ্কা সফরে হঠাৎ করেই টি ২০ থেকে অবসরের ঘোষণা দিয়ে ছিলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। বাঙ্গালী ক্রিকেটপ্রেমীরা ম্যাশের এই ঘোষনা শুনে এর প্রতিবাদে রাস্তায় পর্যন্ত নেমে পড়েন। ম্যাশের এই পদত্যাগের পেছনে সাবেক কোচ চন্দ্রিকা হাথুরুসিংহের হাত রয়েছে বলে খবর শোনা যায়।  কিন্তু এই ব্যাপারে ম্যাশ নিজে কিছুই বলেননি।  বিপিএলে ম্যাশের উদ্ভাসিত অল-রাউন্ড পারফর্মেন্সের পর অবসর ভাঙ্গার দাবি ওঠে। তবে বাংলাদেশের এই কিংবদন্তী সেই সম্ভাবনাকে নাকচ করে দিয়ে টেস্টে ফেরার ইঙ্গিত দেন।

বিপিএল এ মাশরাফির অর্জন

ক্রিকেট

৫ বার অনুষ্ঠিত হওয়া বিপিএল আসরে ৪ বারই বিজয়ী হয়েছে মাশরাফির দল। এবার সেই ধারা বজায় রেখে মাশরাফি বিজয় এনে দিলেন রংপুর রাইডার্স কে। দলটির মালিকপক্ষ বসুন্ধরা গ্রুপ মাশরাফিকে রেঞ্জ রোভার দিতে চেয়েছিল। বেশকিছু দিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লেখালেখি হচ্ছিল যে, নড়াইল সদর হাসপাতালে অ্যাম্বুলেন্স প্রয়োজন।

এরপরই নড়াইলের জন্য রংপুর রাইডার্স কর্তৃপক্ষের কাছে অ্যাম্বুলেন্সটি চান মাশরাফি।

সবাইকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা।

একার একাকিত্ব

একারকিছু হারানোর দুঃখ নেই, কিছু পাওয়ারও সুখ নেই।
তবুও দুঃখটাকেই ভীষণ ভালোলাগে,
বিরহীভাবে তৃপ্তি পাই।
খুব আপন হয়ে প্রত্যেকটি অনুভবের একক-কে নাড়া দিতে পারে বলে,
হয়তো তাই।
আমি একাই পাল্লা দিয়ে সমানে দৌড়াই
জোরেশোরে নিশ্বাসে হাপাই
যা ইচ্ছে তাই
তাতেই আমি আমায় পাই।

(“শিরোনাম এর জন্যে ধন্যবাদ বাইদ্যানি 🐍 (আশা বিনতে হোসেন) ভালো থাকিস অজানায়, পরপারে যেমন থাকে হারিয়ে যাওয়া সবাই।”)

 

পাপিষ্ঠের অভিমান

পাপিষ্ঠের

আমি দেখেছি তাকে
ক্ষমা না পাওয়ার বিষম যন্ত্রণায় ছটফট করে
বেঁচে থেকে ডুকরে মরতে,
অতি তীব্রতায় পাপী ভুলে যায় তার কী ভুল ছিলো
তবুও সে বেহায়া আর নির্লজ্জের মতো
দুহাত তুলে কতো –
হে প্রভু!
তুমি কী আসলেই করুণাময়!
তাহলে কেনো গভীরে এতো ব্যথা হয়?
তুমি কোথায় মুখ ঘুরিয়ে আছো?
পাপিষ্ঠের চেহারা না দেখলেই বাঁচো!
রাত ফুরয়, অশ্লীল কালো, গভীর নির্জন রাত,
সহস্র শতাব্দী পুরনো
তোমার পুণ্যের ঘরেই হউক প্রভাত।