আমার

স্বৈরাচারীর আর্তি

একদিন আমার সব ছিল, আমিই ছিলাম রাজা

আমার কথা শুনত সবাই, সবাই ছিল প্রজা

অহংকারে মাটিতে মোর, পড়তো নাকো পা

করতাম আমি মনের সুখে, যখন খুশি যা

রাতকে আমি দিন করিতাম, দিন করিতাম রাত

এক ইশারায় বহু মানুষ, করে দিতাম ফাঁত

আমার কথায় আর্মি পুলিশ, গোয়েন্দাদের দল

ভয়ের চোটে উঠত কেঁপে, পড়তো চোখের জল

পাইক-পেয়াদা অনেক ছিল, ছিল অনেক বাড়ি

আমার চলার আগে পিছে, থাকতো শত গাড়ি

কোন দেশের আমন্ত্রণে, আমি সেথায় গেলে

কি যে খুশি হতো তারা, আমায় কাছে পেলে

লাল গালিচা সেরা বাড়ি, দারুন খাবার দিত

আমার সেবা করে তারা, হয়ে যেত প্রীত

সব হারিয়ে নিঃস্ব এখন, জেলখানাতে থাকি

কখন জানি খাঁচা ছেড়ে, উড়াল দিবে পাখি

এখন আমি বুঝে গেছি, আমি কিছুই না

অহংকার সব উড়ে গেছে, মাটিতেই এখন পা

ভুল করেছি ভুল ভেবেছি, ভুলেই জীবন পার

ভুলগুলো কি শুধরে নেয়ার, সময় পাব আর

আর কি আমি মুক্ত হব, স্বাধীন খোলা জীবন পাব?

তোমরা আমায় ক্ষমা কর, একেবারেই চলে যাব

শাসক যারা আছো তারা, কেউ করনা আমার মতো ভুল

নয়ন জলে ভাসবে শেষে, পাবেনা কেউ কূল

বন্ধ জেলে থাকবে একা, রইবেনা কেউ পাশে

স্বৈরাচারী নাম নিয়ে হায়, থাকবে ইতিহাসে

তাই বলি কি সময় আছে, ভাল হয়ে যাও

যা পেয়েছ ধন্য তুমি, সব পেয়েছ ফাও ।।

2 thoughts on “স্বৈরাচারীর আর্তি”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *